You are here
Home > আন্তর্জাতিক > কাতালোনিয়া কেন স্পেন থেকে বেরিয়ে যেতে চায়?

কাতালোনিয়া কেন স্পেন থেকে বেরিয়ে যেতে চায়?

স্পেনের ক্ষুদ্র একটি অংশ হয়েও স্বাধীনতা চাইছে কাতালোনিয়া। কাতালোনিয়ার জনসংখ্যা ৭৫ লাখ। স্পেনের মোট জনসংখ্যার ১৬ শতাংশ এই কাতালোনিয়ায়। স্পেনের উত্তর-পূর্বের এই প্রদেশটির রাজধানী বার্সেলোনা। তাদের আছে নিজস্ব ভাষাও। ফুটবল এবং একইসঙ্গে পর্যটনের কারণে বার্সেলোনা বিশ্বের অত্যন্ত জনপ্রিয় শহরগুলোর একটি।

কাতালোনিয়া স্পেনের অত্যন্ত সমৃদ্ধ একটি অঞ্চল। এর লিখিত ইতিহাস এক হাজার বছরেরও বেশি পুরনো। স্পেনের গৃহযুদ্ধের আগে এই অঞ্চলের ছিল বড় রকমের স্বায়ত্তশাসন। কিন্তু ১৯৩৯ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত জেনারেল ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কোর স্বৈরশাসনের সময় কাতালোনিয়ার স্বায়ত্তশাসনকে নানা ভাবে খর্ব করা হয়। ফ্রাঙ্কোর মৃত্যুর পর সেখানকার জাতীয়তাবাদ আবার শক্তিশালী হতে শুরু করে এবং তীব্র আন্দোলন ও দাবির মুখে ওই অঞ্চলকে স্বায়ত্তশাসন ফিরিয়ে দেওয়া হয়। আর সেটা করা হয় ১৯৭৮ সালের সংবিধানের আওতায়।

স্পেনের সংসদে ২০০৬ সালে একটি আইন প্রণয়ন করা হয় যেখানে কাতালোনিয়াকে আরো কিছু ক্ষমতা দেওয়া হয়। কাতালেনিয়াকে উল্লেখ করা হয় একটি ‘জাতি’ হিসেবে।

কিন্তু সংবিধানে কাতালোনিয়াকে দেওয়া এরকম অনেক ক্ষমতা পরে স্পেনের সাংবিধানিক আদালত বাতিল করে দেয় যা কাতালোনিয়ার স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে ক্ষুব্ধ করে।

স্বায়ত্তশাসন কাটছাঁট করার ফলে ক্ষুব্ধ হন কাতালানরা। এর সঙ্গে যুক্ত হয় বছরের পর বছর ধরে চলা অর্থনৈতিক মন্দা, সরকারি খরচ কমানো। ২০১৪ সালে অনানুষ্ঠানিক ভাবে স্বাধীনতার প্রশ্নে একটি গণভোটের আয়োজন করে। তখন ভোটার ছিল ৫৪ লাখ। ভোটে অংশ নেয় ২০ লাখেরও বেশি ভোটার এবং কর্মকর্তারা ঘোষণা করেন যে ৮০ শতাংশেরও বেশি ভোটার স্পেন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে রায় দেন। অর্থাৎ জনগণের রায় হলো কাতালোনিয়া চায় স্বাধীনতা।

বিচ্ছিন্নতাবাদীরা ২০১৫ সালে কাতালোনিয়ার নির্বাচনে জয়লাভ করে। তখন তারা এমন একটি গণভোট আয়োজনের কথা বলে যার আইনি বৈধতা থাকবে এবং সেটা মানতে কেন্দ্রীয় সরকার বাধ্য হবে।

স্পেনের সংবিধানকে লঙ্ঘন করেই তারা এই ঘোষণা দেয়। কারণ সংবিধানে বলা আছে, স্পেনকে ভাগ করা যাবে না।

কাতালান পার্লামেন্টে গণভোটের প্রসঙ্গে একটি আইন তৈরি করা হয় এবছরের সেপ্টেম্বর মাসে। সেখানে রাখা হয় মাত্র একটি প্রশ্ন: আপনারা কি চান কাতালোনিয়া প্রজাতন্ত্রের কাঠামোয় একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হয়ে উঠুক? আর সেখানে দুটো ভোট দেওয়া উপায় রাখা হয়: হ্যাঁ অথবা না।

বিতর্কিত এই আইনটিতে ভোটের ফলাফলকে মানতে বাধ্যতামূলক করা হয় এবং বলা হয় কাতালোনিয়ার নির্বাচন কমিশন গণভোটের ফলাফল করার দুইদিনের মধ্যে পার্লামেন্টে কাতালোনিয়াকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা করতে হবে।

কাতালান প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন, অন্য কোন আদালত বা রাজনৈতিক শক্তি তার সরকারকে ক্ষমতা থেকে বরখাস্ত করতে পারবে না।

স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাখয় এই ভোটকে অবৈধ হিসেবে ঘোষণা করেন। বলেন, “আমি অত্যন্ত নরম সুরো কিন্তু কঠোর করে বলতে চাই কোন গণভোট হবে না। এটা হবে না।”

প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে স্পেনের সাংবিধানিক আদালত কাতালোনিয়ার ওই আইনটিকে বাতিল করে দেয়। এতে কাতালানরা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে এবং তারপর থেকেই স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকার কাতালোনিয়ার অর্থনীতি ও পুলিশের ওপর নিয়ন্ত্রণ নিতে শুরু করে।

গণভোটের আয়োজনকারী কর্মকর্তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জব্দ করা হয়েছে এক কোটি ব্যালট পেপার এবং যেসব ওয়েবসাইটে এই গণভোটের প্রচারণা চালানো হচ্ছে সেগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

যদিও বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, কোন না কোন উপায়ে, কাতালোনিয়ার কোথাও না কোথাও এই গণভোট ঠিকই অনুষ্ঠিত হবে। যদিও এই ভোট বন্ধ করতে সেখানে অতিরিক্ত চার হাজার পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

ভোটাররা যাতে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে পারেন সেজন্যে একটি অ্যাপ তৈরি করা হয়েছে। সেখানে ভোট কেন্দ্রগুলো কোথায় কোথায় সেটা বলে দেওয়া হচ্ছে। তবে ভোট কতোটা সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে সেটা বলা কঠিন।

স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতি সমর্থন আছে এরকম একটি রাজনৈতিক দল, যারা ২০১৫ সালে কাতালোনিয়ার নির্বাচনে ৪০ শতাংশ ভোট পেয়েছে, তারা এই গণভোট বর্জন করছে।

ফলে না ভোট পড়লেও তার সংখ্যা হবে খুবই কম এবং সেটা প্রতিনিধিত্বশীল হবে না। তবে ভোটের হার যদি খুব বেশি হয় তাহলে কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষেও এই জনরায়কে তুড়ি মেরে উড়িয়ে দেওয়া অতোটা সহজ কাজ হবে না।

স্বাধীনতার পক্ষের সমর্থকরা স্পেন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার দাবিতে বড় রকমের সমাবেশ করেছে। ১১ সেপ্টেম্বরে জাতীয় দিবস উপলক্ষে জড়ো হয়েছিলো ১০ লাখেরও বেশি মানুষ।

কাতালান সরকারের উদ্যোগে চালানো এক জনমত জরিপে দেখা গেছে, ৪১ শতাংশ স্বাধীনতার পক্ষে, আর বাকি ৪৯ শতাংশ স্বাধীনতা চায় না। ধারণা করা হয়েছিল স্বাধীনতার সমর্থনে গত কয়েক বছরে হয়তো ভাটা পড়েছে। কিন্তু স্পেন সরকার যেভাবে দমন পীড়ন চালিয়ে গণভোট বন্ধ করেত চাইছে তাতে অনেকেই হয়তো স্বাধীনতার দিকে ঝুঁকেও পড়েছেন, তবে আসল চিত্রটা যে কি বলা কঠিন।

Leave a Reply

Top