৭০,৭১ রক্ত ও উত্তর সুরী নাই, আছে শ্রম — মেয়র জাহাঙ্গীর আলম – Live News BD, The Most Read Bangla Newspaper, Brings You Latest Bangla News Online. Get Breaking News From The Most Reliable Bangladesh Newspaper; livenewsbd.co
You are here
Home > প্রচ্ছদ > ৭০,৭১ রক্ত ও উত্তর সুরী নাই, আছে শ্রম — মেয়র জাহাঙ্গীর আলম

৭০,৭১ রক্ত ও উত্তর সুরী নাই, আছে শ্রম — মেয়র জাহাঙ্গীর আলম


ইমন খানঃ

“অনেকের অনেক কিছু আছে,,অনেকের ৭১ আছে,, অনেকের ৭০ আছে,, কারো রক্ত আছে,, অবদান আছে—আমার কোন উত্তরসুরী নাই,, আমি কখনো পিয়নের কাছে , কখনো সচিবালয় আবার কখনো মন্ত্রনালয় আমার এই পায়ের পরিশ্রমটাই কিন্তু আছে,, আমি যত রান করবো (দৌড়াইব) ততো ভালো করবো”। ছাত্র রাজনীতি থেকে শুরু আজ পর্যন্ত বসে নেই,যেখানে গেলে উন্নয়ন হবে,গাজীপুর বাসী ভালো থাকবে সেটাই করার চেষ্টা করছি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জীবন দশায় জেল খেটেছেন প্রায় ১৪ বছর, তারপরও একটি সার্বভৌমত্ব দেশ ও পতাকা উপহার দিয়ে গেছেন বাঙালিদের জন্য। তার শাসনামলে আমরা দেখতে পাই,অন্ন,বস্র ও বাসস্থান নিশ্চিত করার জন্য এদেশ থেকে ঐ দেশ পর্যন্ত গমণ করেছেন। এক সময় জাতি এই মহামানবকে হারাল। এরপর তারই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আজকের সফল রাষ্ট্রনায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনা জাতির জনকের ইচ্ছে পূরন করতে রাতদিন শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন। নগরের ৩৯ নং ওয়ার্ডে ৪ ই সেপ্টেম্বর হায়দ্রাবাদ রাস্তা প্রসস্থ করণের জন্য এলাকাবাসীর সাথে মত বিনিময় সভায় এসব কথা বলেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মানবিক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব এ্যাডঃ মোঃ জাহাঙ্গীর আলম। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, কেউ কোনদিন গাজীপুরকে নিয়ে চিন্তা করেনি ,এই প্রথম গাজীপুরে মাস্টার প্লান তৈরি করেছি আমি। যারা এত বছর ক্ষমতায় ছিলেন,তাদের এ কাজটি করা দরকার ছিল। তারা শুরু করলে,আমরা ঐখান থেকে শুরু করতাম। অনেকে রাস্তা ৩০,৪০,৬০ ফিট করার জন্য মেয়র কে বাহবা দেন,কিন্তু তার বাড়ির পাশে ২ ফিট ছাড়তে রাজি নয়। এগুলো থেকে আমাদের বেড়িয়ে আসতে হবে,অনেই আমাকে বলেন রাস্তার জন্য জমি দিলে আমরা তো শেষ হয়ে যাই। তাদের উদ্দেশ্যে মেয়র বলেন,রাস্তা প্রসস্থ হলে গরীবরা ধনী হবে,৩ লাখ টাকার জমির দাম হবে ৮/১০ লক্ষ টাকা । জীবন যাত্রার মান উন্নয়ন হবে,অর্থনৈতিক চাকা সচল হবে। জীবনের চাওয়া পাওয়ার কিছুই নাই আমার। ৭০ বছরের দলের সাধারণ সম্পাদক হয়েছি,জননেত্রী মায়ের স্থানে থেকে মেয়র পদে মনোনয়ন দিয়েছেন। আপনারা ভালোবেসে মেয়র বানিয়েছেন। বসে থেকে আরাম আয়েশ করে জীবন চালাতে পারতাম। কিন্তু ইচ্ছে আছে অন্ধকারে থাকতে চাই না,আলোর পথে থেকে নগর কে এগিয়ে নিয়ে মানুষের জীবন যাত্রার মান সচল করতে। গত পাঁচ বছরে কি পরিমাণ কাজ হয়েছে,আমার থেকে আপনারা ভালো বলতে পারবেন। বর্তমানে দেখে আসুন,নগরের চলমান উন্নয়ন কাজ দেখতে হলে এক সপ্তাহে লাগবে। ভোটের সময় প্রার্থীরা মিথ্যে বলে,এর বিচার করবেন আপনারা। ,প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কাজ করার চেষ্টা করছি। একটি পরিকল্পিত শহর করতে গেলে সময় লাগবে,সেই সময় অনেকেই দিতে চান না,সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকে অনেক কিছুই করেন,দেখান, বড়বড় বুলি দেন। ভোটের সময় আপনাদের পায়ে হাত দিয়ে ভোট নিয়েছি। বলেছি আমার জন্য একমাস কষ্ট করেন,আমি আপনাদের কে একটি নগর উপহার দেওয়ার জন্য পাঁচ বছর কষ্ট করবো। সেটা রক্ষা করে চলছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও দেশরত্ম শেখ হাসিনা আমার মায়ের স্থানটি কে ধরে রেখে আমাকে আপনাদের সেবক হিসেবে কাজ করার সুযোগ দিয়েছেন। সেটা করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি, নির্বাচনের আগে এবং পরে বলছি, আপনারা এই নগরের মালিক আমি আপনাদের সেবক।

Leave a Reply

Top