You are here
Home > খেলাধুলা > ‘স্কার্ট’ পরায় বাদ দাবা প্রতিযোগিতা থেকে

‘স্কার্ট’ পরায় বাদ দাবা প্রতিযোগিতা থেকে

স্টাফ রিপোর্টারঃ মেয়েটির বয়স ১২। খুব ভালো দাবা খেলে সে। মালয়েশিয়ার এই কিশোরী দাবাড়ু গিয়েছিল একটি দাবা প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে। কিন্তু দেশটির প্রশাসনিক রাজধানী পুত্রজায়ায় অনুষ্ঠিত এই প্রতিযোগিতায় সে অংশ নিতে পারেনি। আয়োজকেরা তার পোশাককে বলেছে ‘প্রলুব্ধকর’। আর এ নিয়ে দেশটির সামাজিক মাধ্যমে কদিন ধরে রীতিমতো ঝড় চলছে।

ঘটনাটি কিছুদিন আগের। ন্যাশনাল স্কলাস্টিক চেজ টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় রাউন্ডে এই ঘটনা ঘটে। প্রতিযোগিতায় খেলোয়াড়দের পোশাকের ব্যাপারে আগে থেকে কোনো নির্দেশনা ছিল কি না, তা পরিষ্কার নয়। তবে প্রতিযোগিতার পরিচালকের মতে, এমন পোশাক কোনোভাবেই নাকি মেনে নেওয়া যায় না। তাঁদের ভাষায়, মেয়েটির পোশাক ‘নির্দিষ্ট দৃষ্টিকোণ থেকে খুবই প্রলুব্ধকারী।’
‘স্কার্ট’ পরার কারণে প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে না পারার ব্যাপারটি কিছুতেই মেনে নিতে পারছে না মেয়েটি। তার মাও ক্ষুব্ধ। মেয়েটির কোচ কুশল খান্ধার ফেসবুকে লিখেছেন, তাঁর ছাত্রীর জন্য এ ছিল বিরাট এক মানসিক ধাক্কা, ‘পুরো ব্যাপারটিতে সে অপমানিত বোধ করেছে। এ জন্য সবার সামনে সে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে।’
দাবার আন্তর্জাতিক সংগঠন ফিদের পোশাক নিয়ে নির্দিষ্ট কোনো বিধিমালা নেই। সম্মানজনকভাবে হাজির হলেই হলো। বাকিটা আয়োজকদের ওপর। ইরানের মতো কট্টর মুসলিম দেশে নারী প্রতিযোগীদের অংশ নেওয়ার ব্যাপারে পোশাকের কিছু বিধিমালা থাকে। তবে মালয়েশিয়ায় এর আগে কখনো এ নিয়ে তেমন বিতর্ক হয়নি বলে দাবি করলেন খান্ধার। তুলনামূলক উদার মুসলিম দেশ মালয়েশিয়ায় স্কার্ট বা শর্ট পরে জনসমক্ষে হাজির হওয়াও নতুন নয়। এ নিয়ে কোনো বিধিনিষেধ নেই।
আর খান্ধার তাই ‌আয়োজকদের এখতিয়ার নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন, ‌‘আমি দুই দশক ধরে মালয়েশিয়ায় দাবা খেলছি। কখনো মালয়েশিয়ার কোনো টুর্নামেন্ট ঘিরে এ ধরনের বিতর্ক হয়েছে বলে শুনিনি।’ ‌ সূত্র: স্ট্যান্ডার্ড ডটনেট।

Leave a Reply

Top