You are here
Home > দূরনীতি ও অপরাধ > সেন্সর বোর্ড সদস্যের ওপর হামলা, গ্রেপ্তারে আলটিমেটাম

সেন্সর বোর্ড সদস্যের ওপর হামলা, গ্রেপ্তারে আলটিমেটাম

বিনোদন ডেস্কঃ বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ও সেন্সর বোর্ডের সদস্য ইফতেখার উদ্দিন নওশাদের ওপর হামলার প্রতিবাদে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলন থেকে জানানো হয়, আগামী শনিবারের মধ্যে ইফতেখার উদ্দিন নওশাদের ওপর হামলায় জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করতে হবে এবং তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির নিশ্চয়তা না দিলে রোববার থেকে সারা দেশে প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ রাখা হবে।

যৌথ প্রযোজনার অনিয়মের বিরুদ্ধে আন্দোলনের ডাক দেয় চলচ্চিত্রের ১৪টি সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত নতুন সংগঠন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিবার। ২১ জুন তারা সেন্সর বোর্ড ঘেরাও কর্মসূচি পালন করে। সে সময় সেন্সর বোর্ডে প্রবেশের মুখে আন্দোলনকারীদের হামলার শিকার হন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক ও সেন্সর বোর্ডের সদস্য শাবান মাহমুদ, ‘নবাব’ ও ‘বস ২’ সিনেমা দুটির বাংলাদেশ অংশের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আবদুল আজিজ, পরিচালক ও অভিনেতা নাদের চৌধুরী, চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির পক্ষে সুদীপ্ত কুমার দাশ, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী প্রমুখ।

প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ও সেন্সর বোর্ড সদস্য ইফতেখার উদ্দিন নওশাদের ওপর হামলার প্রতিবাদে প্রেসক্লাবে মানববন্ধন। ছবি: সংগৃহীত

শাবান মাহমুদ বলেন, ‘সভ্য সমাজে কোনো মানুষের ওপর এমন আক্রমণ হতে পারে, তা আমাদের ধারণায় ছিল না! মধুমিতা সিনেমা হলের মালিক নওশাদ ভাই সেন্সর বোর্ডের একজন সদস্য। সেন্সর বোর্ডে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে আসার সময় কার্যালয়ের নিচে প্রযোজক নেতা খোরশেদ আলম খসরু, চিত্রনায়ক রিয়াজ ও শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর শারীরিকভাবে নওশাদ ভাইকে আক্রমণ করেছেন। ঘটনাস্থলে আমরা না থাকলেও পরে খোঁজখবর নিয়ে জানতে পারি। শুধু তা-ই নয়, স্থিরচিত্র ও ভিডিওফুটেজ সংগ্রহ করে এর প্রমাণ পাওয়া গেছে। পুলিশ নওশাদ ভাইকে উদ্ধার করেছে। সরকারি কাজে বাধা দেওয়ায় কারণে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়ায় মামলা হতে পারে। আমার লজ্জা বা ঘৃণা হয় এঁদেরকে চলচ্চিত্র জগতের অভিনেতা বা অভিনেত্রী হিসেবে পরিচয় দিতে।’

সংবাদ সম্মেলনে এ-ও জানা যায়, সেন্সর বোর্ড সদস্যদের দায়িত্ব হচ্ছে সিনেমা দেখা। যৌথ প্রযোজনার সিনেমা এ দেশে চলবে কি চলবে না, তার সিদ্ধান্ত নেবে সরকার। অভিনেতা-অভিনেত্রী হয়ে লাভ নেই, যদি তাদের সেই সিনেমা দর্শক না দেখেন।

আন্দোলনকারী বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিবার সদস্যরা সেন্সর বোর্ড ঘেরাওকালে প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ও সেন্সর বোর্ড সদস্য ইফতেখার উদ্দিন নওশাদের ওপর হামলা চালান। ছবি: সংগৃহীত

নাদের চৌধুরী বলেন, ‘যাঁরা প্রকাশ্যে বলেন যে “নবাব” ও “বস ২” প্রদর্শন করা হলে প্রেক্ষাগৃহে আগুন দেওয়া হবে, তাঁদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। একটি গণতান্ত্রিক দেশে এ ধরনের বক্তব্য দিতে পারেন না তাঁরা।’ পরিচালক সমিতি, শিল্পী সমিতিকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, আপনারা কথায় কথায় নিষিদ্ধ করছেন। এসব করা ঠিক নয়। এফডিসি আন্দোলনের স্থান নয়। এ বিষয়েও সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজী শোয়েব রশিদ। সংবাদ সম্মেলনের পর ইফতেখার উদ্দিন নওশাদের ওপর হামলার প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতি। এরপর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দেয়া হয়।

Leave a Reply

Top