You are here
Home > সারা বাংলা > জেলার খবর > সাইফুল্লাহ শাওনের পারিবারিক ও ব্যাক্তি ইমেজকে ধ্বংস করতেই বার বার ষড়যন্ত্রের শিকার

সাইফুল্লাহ শাওনের পারিবারিক ও ব্যাক্তি ইমেজকে ধ্বংস করতেই বার বার ষড়যন্ত্রের শিকার

ষ্টাফ রিপোটরর ঃ

মুক্তিযুদ্ধের সুঁতিকাগাঁথা জয়দেবপুর। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী একটি পরিবারের সন্তান সাইফুল্লাহ শাওন।

তার বাবা মৃত্যর আগের দিন পর্যন্ত আওয়ামীলীগের রাজনীতি জড়িত ছিল। জেলা আওয়ামীলীগ এর প্রভাবশালী সদস্য ছিল। জেলা সেক্টরস কমান্ডার্স ফোরাম এর সভাপতি ছিলেন।

তার একজনই চাচা আহসান উল্লাহ্‌ অন্তু একজন আয়কর উপদেষ্টা ও গাজীপুর ট্যাক্সেস বার এসোসিয়েশন এর এগারো বার এর সভাপতি ও সাধারন সম্পদক এর দায়িত্ব পালন করছেন। শাওনের বড় ভাই আব্দুল্লাহ ইবনে সাইদ একজন আইনজীবী।

শাওন ছোট বেলা থেকে সদ্যবিদায়ী মহানগর ছাএলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাসুদ রানা এরশাদ এর চলাফেরা একসাথে দীর্ঘসময় রাজনৈতিক পথ চলা।

শাওন রাজনৈতিক অঙ্গনে স্পষ্ট বাদী তাই অনেকেই তাকে মেনে নিতে কষ্ট হয়। লড়াই সংগ্রাম আন্দোলনে শাওন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।

এসব কারনে শাওনকে নিয়ে ষড়যন্ত্র শুরু করেন ষড়যন্ত্রকারীরা। শাওনকে বিভিন্ন সময় মিথ্যা মামলা দিয়েও হয়রানী করা হয়।শাওন দীর্ঘসময় ধরে জয়দেবপুর ইজিবাইক মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক।

এটাই শাওনের কাল হয়ে দাঁড়ায়। শাওন সাধারন সম্পাদক থাকলে কোন চাঁদাবাজ ইজিবাইক থেকে অবৈধ ভাবে চাঁদা তুলতে পারে না। এই কারনেই শহরের চিহ্নিত চাঁদাবাজরা শাওন চক্তচোখ দেখিয়ে চোখ রাঙ্গায়।

তারপরের শাওন ভয় না পাওয়ার কারনে চিহ্নিত চাঁদাবাজরা শহরের কিছু রাজনৈতিক নেতার সার্বিক সহযোগীতায় শাওনকে মিথ্যা অভিযোগ এনে প্রশাসনিক ভাবে হয়রানীর অপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছে।

শাওন বাসায় ঘুমিয়ে থাকলেও কোথাও কোন অপরাধ সংগঠিত হলেই কিছু স্বার্থনিশী মহল ওই অপরাধের দায়ভার শাওনের উপর চাপিয়ে দেয়। এমন একটি ঘটনা আজকেও ঘটিয়েছে ষড়যন্ত্রকারীরা।

শাওনের সাথে যোগাযোগ করা হলে শাওন বলেন আমাকে সামাজিক ও রাজনৈতিক ভাবে হেয়পতিপন্ন করার জন্য শহরের সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে আমার পিছনে লেগেছে।

তাদের অনেক কাজে আমি বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে না পারি তাই এই সব ষড়যন্ত্রে মেতেছে তারা। আমি আল্লাহ্‌ ছাড়া কাউকে ভয় পাই না।

Leave a Reply

Top