You are here
Home > সারা বাংলা > জেলার খবর > যশোরের ঝিগরগাছায় মালিকের মৃত্যুতে বেদখল ইট ভাটা !!!

যশোরের ঝিগরগাছায় মালিকের মৃত্যুতে বেদখল ইট ভাটা !!!

বিশেষ প্রতিনিধি, যশোর।
যশোর জেলার অন্তর্ভুক্ত ঝিগরগাছা উপজেলার লাওজানি রেলগেট এলাকায় জনতা ব্রিক্স এন্ড ম্যানুফ্যাকচারার নামের ইট ভাটাটির মালিক মোঃ খালেদুজ্জামান (হবি) দীর্ঘ ১২ বছর যাবত প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করে আসছিলেন। ব্যবসা পরিচালনার পুজির সংকট দেখা দিলে ২০১৯ সালের জুন মাসে লাউজানি নিবাসী মোঃ ইস্তিয়াক আহমেদ রয়েলের সাথে লভ্যাংশ ভাগাভাগির মাধ্যমে যৌথ ব্যবসার চুক্তিতে চুক্তিবদ্ধ হয়ে তাকে ব্যবাসা পরিচালনার জন্য দেওয়া হয়। চুক্তির কয়েক মাস যেতে না যেতেই রুপ বদলাতে থাকেন রয়েল। লভাংশের অর্থও পরিশোধ করতে অপারগতা জানান। সেই সাথে নিজের স্থানীয় ক্ষমতা ও বেপরোয়া ক্যাডার বাহিনী দিয়ে নানা রকম ভয়ভীতি দেখিয়ে মালিককে প্রতিষ্ঠান থেকে বের করে দিয়ে রাতারাতি প্রতিষ্ঠানের মালিক বনে যান রয়েল।

এদিকে লভ্যাংশের অর্থ না পাওয়ার কারনে ও উক্ত ইট ভাটার বিপরীতে পূর্বের গৃহীত প্রায় কোটি টাকার ব্যাংক লোন পরিশোধ করতে ব্যার্থ হন মালিক খালেদুজ্জামান। প্রতিষ্ঠান বেদখল সহ আর্থিক অসচ্ছলতার দরুন মানুষিক চাপে পড়ে যান এবং গত ২২ শে জুন মৃত্যুবরন করেন। তার মৃত্যুর পর ওয়ারিশগন প্রতিষ্ঠানে মালিকানার হিসাব সহ লভ্যাংশ বুঝে নিতে চাইলে পড়েন বিপাকে। রয়েল ক্যাডার বাহিনী নানা রকম হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে মৃত খালেদুজ্জামানের স্ত্রী ও সন্তানদের। এখন পরিবারটি ভয়ে দিন কাটাচ্ছে। বিভিন্নভাবে রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক সহায়তার জন্য দুয়ারে দুয়ারে ঘুরে ও পাচ্ছেন না কোন সমাধান। স্থানীয় প্রভাবশালীদের মাধ্যমে সমঝোতার জন্য রয়েল কে ডেকে পাঠালেও আলোচনায় বসতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি। বেসরকারী ব্যাংক যমুনা থেকে ভাটার বিপরীতে নেওয়া কোটি টাকার আসল সহ সুদ ও বহন করতে হচ্ছে পরিবারটিকে।

মৃত খালেদুজ্জামানের বড় ছেলে জানান, ভাটা বেদখলের কারনে গত এক টাকাও লভ্যাংশ পাচ্ছিনা। ব্যাংকের লোন পরিশোধ করতে না পারাতে প্রতিনিয়ত ব্যাংকের লোক বাড়িতে এসে বিব্রতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করছেন। বাবা রয়েল কে ভাটা পরিচালনার জন্য দিয়েছিলেন মাত্র কিন্তু তিনি জোর জবরদস্তি করে দখল করে নেন। যশোর জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে সাহায্য প্রার্থনা করলেও পায়নি কোন সমাধান।

Leave a Reply

Top