You are here
Home > অর্থনীতি > মাদারীপুর স্পিনিং মিল বন্ধ ঘোষণা, শ্রমিকদের বিক্ষোভ

মাদারীপুর স্পিনিং মিল বন্ধ ঘোষণা, শ্রমিকদের বিক্ষোভ

মাদারীপুর প্রতিনিধি :

মাদারীপুরের একমাত্র স্পিনিং মিল বন্ধ ঘোষণা করেছে প্রশাসন। এ ঘটনার প্রতিবাদে মিলের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শ্রমিকরা আজ শুক্রবার সকালে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। এ সময় প্রায় আধা ঘণ্টা ঢাকা-বরিশাল মহাসড়ক অবরোধ করে শ্রমিকরা। পরে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশ্বাস দিয়ে শ্রমিকদের মিলের ভেতরে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর শ্রমিকরা মিলের ভেতরেই অবস্থান ধর্মঘট করে।

আজ শুক্রবার দুপুর দেড়টার দিকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘোষণা আসে ঋণের টাকা পরিশোধ না করা পর্যন্ত মিল বন্ধ থাকবে। এই ঘোষণার পরই পুলিশ-শ্রমিকের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। পুলিশ লাঠিচার্জ ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এতে দুই পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ২০ আহত হন।

শ্রমিক, পুলিশসহ একাধিক সূত্রে জানা গেছে, মাদারীপুর স্পিনিং মিলে তিন শিফটে প্রায় দুই হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শ্রমিক কাজ করেন। তারা প্রায় আড়াই মাস ধরে বেতন-ভাতা পাচ্ছেন না। এ অবস্থায় হঠাৎ করে আজ শুক্রবার মিল বন্ধ ঘোষণা করায় শ্রমিকরা অসহায় হয়ে পড়েন। বিক্ষুব্ধ শ্রমিক-কর্মচারীরা মিল চালু রাখার দাবিতে কাজ রেখে আজ শুক্রবার সকালে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের মাদারীপুর মস্তাফাপুরের বড়ব্রিজ এলাকায় অবস্থান নেন। এ সময় তারা রাস্তায় যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেন। এতে দুই পাশে কয়েক শ যানবাহন আটকা পড়ে। পরে প্রশাসনের আশ্বাসে সড়ক অবরোধ তুলে নিয়ে মিলের ভেতর বিক্ষোভ ও অবস্থান ধর্মঘট করতে থাকেন তারা। এ সময় ১৫ কোটি টাকা ঋণের দায়ে সরকার মিলটি বন্ধ করার ঘোষণা দিয়েছে জানানো হলে মিলের শ্রমিক ও কর্মচারীরা আরো বেশি বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। একপর্যায়ে পুলিশ ও শ্রমিক-কর্মচারীদের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। এ সময় পুলিশ শ্রমিকদের ওপর লাঠিচার্জ ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এতে দুই পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ২০ শ্রমিক আহত হন।

মিলের শ্রমিকরা জানান, তাদের একটাই দাবি মাদারীপুর স্পিনিং মিল বন্ধ হতে দেবেন না তারা। মিল বন্ধ হলে প্রায় দুই হাজার শ্রমিক কর্মচারী বেকার হয়ে পড়বে। এ মিলের সিংহভাগ নারী শ্রমিক, যারা একেবারেই অসহায়। মিলের শ্রমিক কোহিনুর, মাজেদা, রহিমা, সাজেদা, মাহিনুর, সাহিনুরসহ একাধিক নারী কান্না জড়িত কণ্ঠে জানান, তাদের অনেকের স্বামী নাই। এখানকার বেতন দিয়ে সংসার চালান তারা। সন্তানদের পড়াশুনা করান। বহু অসহায় মেয়ে রয়েছেন তারা এই মিলে কাজ করেন। তারা জানেন এই সরকার শ্রমিকবান্ধব সরকার। তাদের এভাবে অসহায় অবস্থায় ফেলে দেবে না। তারা যে কোনো অবস্থাতেই মিলটি বন্ধ হতে দেবেন না।

মাদারীপুর স্পিনিং মিলের ডিজিএম আলী আকবর বলেন, “আমাদের কোনো নোটিশ ছাড়া হঠাৎ করে মাদারীপুর প্রশাসন মিল বন্ধ করতে বলে। আমরা অফিস থেকে শ্রমিকদের এ কথা জানালে তারা আন্দোলনে নেমে পড়ে। আমরা তো অসহায় হয়ে পড়ি। আমরা এখনো আড়াই মাসের বেতন শ্রমিকদের দিতে পারি নাই। এখানে এক একজন শ্রমিক একটি পরিবার নিয়ে বেঁচে আছে। আর আমরাই বা কি করব। ” মাদারীপুর অতিরিক্তি পুলিশ সুপার (সার্কেল) সুমন দেব বলেন, “ঋণের দায়ে মিল বন্ধের নির্দেশ দিলে শ্রমিকরা বিক্ষোভ সমাবেশ এবং সড়ক আবরোধ করেন। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

Leave a Reply

Top