You are here
Home > প্রচ্ছদ > বিএনপির মুখে গণতন্ত্রের কথা মানায় না : ওবায়দুল কাদের

বিএনপির মুখে গণতন্ত্রের কথা মানায় না : ওবায়দুল কাদের

স্টাফ রিপোর্টার :
খুলনায় বিএনপি নেতার হত্যাকাণ্ড নিয়ে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দেওয়া বিবৃতির জবাবে পাল্টাবিবৃতি দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। আজ শনিবার দেওয়া বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, হত্যা, ক্যু, ষড়যন্ত্র ও বন্দুকের নলের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসা বিএনপির মুখে গণতন্ত্রের কথা শোভা পায় না।

কাদের বলেন, এ দেশের মানুষ এখনো সামরিক স্বৈরশাসক জিয়া ও বিএনপির দুঃশাসনের কথা ভুলে যায়নি। গণতন্ত্রের নামে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচন, তারেক জিয়ার প্রতিষ্ঠিত হাওয়া ভবনের প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় শাহ এ এম এস কিবরিয়া, আহসান উল্লাহ মাস্টার, মমতাজ উদ্দিন, মঞ্জুরুল ইমাম, সাংবাদিক হুমায়ুন কবির বালু, অধ্যাপকÿগোপাল কৃষ্ণ মুহুরীসহ ২১ হাজার আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীকে হত্যা, খুন ও ধর্ষণের ভয়াল স্মৃতি এখনো গণতন্ত্রকামী মানুষের বিবেককে নাড়া দেয়। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়ে আইভী রহমানসহ ২৪ জনকে হত্যা ও অসংখ্য নেতা-কর্মীকে পঙ্গু করে মানবতাকে যারা কলঙ্কিত করেছিল তাদের মুখে গণতন্ত্র, সুশাসন সত্যের অপলাপ ছাড়া আর কিছু নয়।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী হয়েও যিনি কালো টাকা সাদা করেন, দুর্নীতি মামলায় হাজিরা দিতে বারবার সময় চেয়ে কালক্ষেপণের কৌশল নেন, তার মুখে সুশাসন ও নীতির কথা এ দেশের মানুষ বিশ্বাস করে না। হত্যা, খুন, ধর্ষণ ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতির ধারক-বাহক ও উগ্র সাম্প্রদায়িকতার পৃষ্ঠপোষক বিএনপি চেয়ারপারসনের বিবৃতি তাদের দীর্ঘ রাজনৈতিক হতাশার চরম বহিঃপ্রকাশ। খালেদা জিয়া সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদী জঙ্গি ও যুদ্ধাপরাধীদের সঙ্গে নিয়ে যেনতেনভাবে ক্ষমতায় যাওয়ার অপচেষ্টায় লিপ্ত। কিন্তু মানুষ তার এই দিবাস্বপ্ন কখনই সফল হতে দেবে না।

বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ প্রতিহিংসার রাজনীতি করে না, আইনের শাসনে বিশ্বাসী রাজনৈতিক দল। তাই জাতির পিতার হত্যার বিচার প্রচলিত আইনে হয়েছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারও আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে সম্পন্ন হচ্ছে। খুন করে পার পাওয়ার দিন শেষ। বিচারহীনতার সেই যুগ আর নেই। খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে সরকারের এই মন্ত্রী আরও বলেন, ‘ধৈর্য ধরুন, ইতিবাচক রাজনৈতিক ধারায় ফিরে আসুন। নিজেদের অপকর্মের জন্য বাংলার মানুষের কাছে ক্ষমাÿচান। নতুবা এই অপরাজনীতির কারণে আপনাদের রাজনৈতিক অস্তিত্ব আরও সংকুচিত হবে।’

Leave a Reply

Top