You are here
Home > সারা বাংলা > জেলার খবর > বাগেরহাটে সন্ত্রাসী হামলা ও ভাংচুরের প্রতিবাদে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

বাগেরহাটে সন্ত্রাসী হামলা ও ভাংচুরের প্রতিবাদে এলাকাবাসীর মানববন্ধন


সৈয়দ ওবায়দুল হোসেন, বাগেরহাট :

বাগেরহাটে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মহিলা ও শিশুসহ সন্ত্রাসী হামলা ও ভাংচুরের প্রতিবাদে এলাকাবাসীর মানববন্ধন করেছে। বুধবার সকালে মোড়েলগঞ্জ উপজেলার প করন গ্রামের রাস্তার পার্শে ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকা বাসী সঠিক বিচারের দাবিতে এ মানববন্ধন পালন করে। ভুক্তভোগী মোড়েলগঞ্জ উপজেলার প করন গ্রামের মৃত হাকিম শিকদারের ছেলে মোঃ কালাম শিকদার (৫৫)জানান,গত শনিবার (২৮ মার্চ) আমার ছেলে সুজন শিকদার (২৫) স্থানীয় সোনাখালি বাজারে বাজার করতে গেলে স্থানীয় মোঃ হাসান দোকানদারের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। একই গ্রামের মৃত খালেক হাওলাদের ছেলে মোঃ মালেক হাওলাদার এতে বাধা দেয় এদিয়ে দুজনের মধ্যে বাকবিতন্ড সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে বাজারে অবস্থানরত স্থানীয়রা লোকজন দুজনকে শান্ত করে বাড়ি পাঠিয়ে দেন। তিনি বলেন, মোঃ মালেক হাওলাদার এলাকায় ডাকাত মালেক হিসেবেই পরিচিত। বিকালে আমার ছেলে আমার নাতনিকে কোলে নিয়ে বাড়ির সামনের রাস্তা দিয়ে ঘেরে যাওয়ার এক পর্যায়ে ডাকাত মালেকের নেতৃত্বে জামাই রিয়াজ,মতি,আলমসহ ৪০/৫০ জন সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র রামদা,রড,লাঠি দিয়ে আমার ছেলের উপর হামলা করে। আমার স্ত্রী তাসলিমা বেগম (৪৫) বাধা দিলে সন্ত্রাসীরা তার উপর ও হামলা চালায় । আমার নাতনি মোঃ সিজান শিকদারকে (০৫) ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। এতে গুরুত্বর আহত হয়ে অজ্ঞান হয়ে রাস্তায় পড়ে থাকে। পরে হামলা কারীরা বাড়িতে গিয়ে বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে নিয়ে যায়। এতে আমার প্রায় দুই লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়। পরে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা রিমন তালুকদার ও শাহিনসহ স্থানীয়রা বাধা দিলে হামলাকারীরা জীবন নাশের হুমকি দিয়ে ঘটনা স্থল ত্যাগ করে। তিনি ডাকাত মালেকসহ সকল হামলা কারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।


এলাকা বাসিরা জানান,এই ডাকাত মালেকের নামে অসংখ্য মামলা রয়েছে। তার ভয়ে অনেকেই মুখ খুলতে সাহস পায় না। সে অধিকাংশ সময়ই জেলে থাকে। যখনই জেলা থেকে বের হয় তখনই শুরু করে সাধারন মানুষের উপর নির্যাতন।


এলাকাবাসী আরো জানান,ডাকাত মালেক,জামাই রিয়াজসহ এলাকায় এদের একটি সংঘবদ্ধ চক্র রয়েছে। এই গ্রুপের কারনে এলাকার মানুষ ঠিক ভাবে ঘুমাতে পারে না । এলাকার যে কোন ব্যাপারে এই চক্রটি একতাবদ্ধ হয়ে অধিকাংশ সময়ই রাত্রে হামলা করে। আমরা এলাকাবাসী এই চক্রের হাত থেকে বাচতে চাই।

Leave a Reply

Top