You are here
Home > সারা বাংলা > জেলার খবর > বাগেরহাটে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারদের বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট

বাগেরহাটে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারদের বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট


বাগেরহাট প্রতিনিধি :

বাগেরহাট জেলার সীমান্তবর্তি নড়াগাতী থানার পূর্ব-দক্ষিন পাশে এক হত্যা মামলার আসামী মুক্তিযোদ্ধা পরিবারদের বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করেছে দুবৃত্তরা ।
শরীফ ব্রীকস এবং শরীফ ফিসারিজের পরিচালক আসাদুজ্জামান টিটুকে হত্যার ঘটনায় নিহতের ভাই মোহাম্মাদ আশিকুজ্জামান বাদি হয়ে ১৮ জনকে নাম উল্লেখসহ অঞ্জাতনামা ১০/১২ আসামী করে নড়াইল থানায় ৩০২/৩৪ পেনাল কোড ধারায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। গত ১লা জুলাই জমি জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে বলে মামলা সূত্রে জানা যায়। ইতিমধ্যে পুলিশ একাধিক আসামীকে গ্রেফতার করছে ।
আসামীর পরিবার সূত্রে জানা যায়,নড়াইল জেলার নড়াগাতী থানার চর সিংগাতী গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মৃত সোনা মিয়ার ছেলে আব্দুল্লাহ চৌধুরী(৩৫),বক্কার চেীধুরী(৩২) ও একই গ্রামের মৃত হিমু চৌধুরীর ছেলে পলাশ চৌধুরী(৩৫), মৃত মিটু মোল্লার ছেলে তুহিন মোল্লা(৩০),মৃত মতিয়ার মোল্লার ছেলে মাসুদ মোল্লা(২৮) এবং পিতা জাহিদ চৌধুরীর ছেলে নতুন চৌধুরীকে উক্ত মামলায় আসামী করা হয় । পুলিশ এদেরকে গ্রেফতার করার পর থেকে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারদের নানান ধরনের ভয় ভীতিসহ বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করেছে সন্ত্রাসীরা। ভুক্তভোগীরা জানান, মোল্লাহাটের বিএনপি নেতা কাবুল চৌধুরীর নেতৃত্বে এক দল সন্ত্রাসী তাদের বাড়িতে হামলা চালায়। বসতবাড়ীর দুইটি বিল্ডিং ও ৭/৮ টি টিনের ঘর ভেঙ্গে মাটির সাথে গুটিয়ে দিয়ে ঘরে থাকা মালামাল লুটপাট করে এবং বাড়িতে থাকা গাছ পালা কেটে নিয়ে যায়। সন্ত্রাসীদের ভয়ে তাদের ছেলেমেয়েদের নিয়ে বাড়িতে ঢুকতে পারছে না বলে ভুক্তভোগিরা জানান। এ ব্যাপারে তারা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

নড়াগাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আলমগীর হোসেন জানান, হত্যা মামলায় ইতিমধ্যে কয়েকজন আসামীদের গ্রেফতার করা হয়েছে । বাকি আসামীদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তিনি আরো জানান, আসামীর বাড়ি লুটপাটের ঘটনা শুনে পুলিশ ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে তবে এ ব্যাপারে লিখিত কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি তবে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।##

Leave a Reply

Top