You are here
Home > সারা বাংলা > জেলার খবর > বাগেরহাটে প্রকৌশলীর স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যার ৫ দিন পর ক্লিং মিশনের ৩ ঘাতক আটক

বাগেরহাটে প্রকৌশলীর স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যার ৫ দিন পর ক্লিং মিশনের ৩ ঘাতক আটক


সৈয়দ ওবায়দুল হোসেন, বাগেরহাট  :


বাগেরহাট শহরে গনপূর্ত বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রকৌশলী মো. আব্দুর রহিমের স্ত্রী হোসনে আরা বেগমকে (৬০) গলাকেটে হত্যার ৫ দিন পর ক্লিং মিশনে অংশ নেয়া দুই সহোদরসহ ৩ ঘাতককে আটক করেছে বাগেরহাট ডিবি পুলিশ। বাগেরহাট গোয়েন্দা পুলিশের এএসআই মোস্তাফিজুর রহমান গোয়েন্দা নেটওয়ার্কের মাধ্যমে মঙ্গলবার রাতে প্রথমে একজনকে আটক করে। পরে উদ্ধর্তন পুলিশ কর্মকর্তাদের সহায়তায় ও আটক আসামীর স্বীকারোক্তি মতে আরো দুইজনকে আটক করে। পরে আটককৃতদের বাসা থেকে নিহতের বাড়ির চুরি হওয়া স্বর্ণালংকার ও হত্যার কাজে ব্যাবহৃত বটি ও ছুরি উদ্ধার করে পুলিশ। এই বিষয়ে বুধবার দুপুরে বাগেরহাট পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় প্রেস ব্রিফিং করে বিস্তারিত জানান।


আটককৃতরা হলো মো. বাবুল শেখের ছেলে মো রিয়াজ শেখ (২২) ও মো. রিয়াদ শেখ (২০) এবং মো.ইউনুস তালুকদারের ছেলে মো. মিরাজুল ইসলাম পাপন (১৯)। আটককৃতরা দক্ষিন সরুই এলাকার মোহাচ্ছেল জমাদ্দার ও টিটু মৃধার বাড়ীর ভাড়াটিয়া।
উল্লেখ্য ২১ মার্চ বৃহষ্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে বাগেরহাট পৌরসভার দক্ষিণ সরুই এলাকায় এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। হত্যান্ডের সময় নিহত গৃহবধুর স্বামী প্রকৌশলী মো. আব্দুর রহিমের ওমরা হজ¦ পালন করতে গত ১৮ মার্চ থেকে সৌদি আরবে রয়েছেন। তার ৩ ছেলেসহ পরিবারের সদস্যরা চাকরির সুবাধে বাড়িতে ছিলেন না।
পুলিশ জানায়, ওই ঘটনায় আটককৃত মিরাজুল ইসলাম পাপনের পিতা ইউনুস তালুকদার পুলিশ লাইনে বাবুর্চির কাজ করেন। অপর দুই ভাই রিয়াজ ও রিয়াদ শেখের মা মনোয়ারা বেগম নিহত হোসনে আরার বাড়ীতে ঝিয়ের কাজ করতো। সেই সুবাদে আসামীদের ওই বাড়ীতে অবাধ যাতায়াত ছিল। এছাড়া আটককৃত আসামীরা হোসনে আরার লাশ উদ্ধার করে পুলিশের সাথে মর্গে নেওয়া, ময়না তদন্তকালে সেখানে অবস্থান ও দাফন সকল কাজে অংশ নেয় বলে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে।

Leave a Reply

Top