বাঁহাতি স্পিনারদের দিনে নায়ক রাজ্জাক – Live News BD, The Most Read Bangla Newspaper, Brings You Latest Bangla News Online. Get Breaking News From The Most Reliable Bangladesh Newspaper; livenewsbd.co
You are here
Home > খেলাধুলা > বাঁহাতি স্পিনারদের দিনে নায়ক রাজ্জাক

বাঁহাতি স্পিনারদের দিনে নায়ক রাজ্জাক

স্টাফ রিপোর্টারঃ এবার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আবদুর রাজ্জাক প্রথম ৫ উইকেট পেলেন কাল ফতুল্লায়। আর বাঁহাতি এই স্পিনারের ঘূর্ণিজাদুতে শেখ জামাল পারটেক্সকে হারিয়েছে ৩ উইকেটে।
বিকেএসপিতেও স্পিন-জাদু দেখিয়েছেন আরেক বাঁহাতি স্পিনার—তাইজুল ইসলাম। তাঁর দুর্দান্ত বোলিংয়ে ভিক্টোরিয়াকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে মোহামেডান। বিকেএসপির আরেক মাঠে ব্রাদার্সও পেয়েছে সহজ জয়। খেলাঘরের বিপক্ষে তাদের জয় ৭১ রানে।
ইরফান শুক্কুরকে (১৯) এলবিডব্লিউ করে ১৭তম ওভারে পারটেক্সের ইনিংসে চিড় ধরান রাজ্জাক। সেটি পরে ধসিয়ে দেন স্লগ ওভারে। ৩৪ রানের মধ্যে শেষ ৫ উইকেট হারিয়ে পারটেক্স অলআউট হয় ২০১ রানে। এই ৫ উইকেটের ৪টিই পেয়েছেন রাজ্জাক। ২০২ রানের সহজ লক্ষ্যটা ছুঁতে অবশ্য যথেষ্টই কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে শেখ জামালকে। ফজলে মাহমুদ-মাহবুবুল করিমের ওপেনিং জুটি ৬৩ রান যোগ করার পরও তাদের জয়ের প্রান্তে পৌঁছাতে খোয়াতে হয়েছে ৭ উইকেট, খেলতে হয়েছে ৪৫.২ ওভার।
গত প্রিমিয়ার লিগে ১১ ম্যাচে ১৮ উইকেট পাওয়া রাজ্জাক এবার ৫ ম্যাচে ১৬ উইকেট নিয়ে এ মুহূর্তে আছেন সবার ওপরে। নিজে ভালো খেলছেন, দলও পাচ্ছে জয়—৩৪ বছর বয়সী স্পিনারের আত্মবিশ্বাস তাই তুঙ্গে, ‘দলে অবদান রাখতে পারলে আমার ভালো লাগে। সব সময়ই আমার লক্ষ্য থাকে এটাই। আর ৫ উইকেট পাওয়া সব সময়ই আমার কাছে বিশেষ কিছু। এতে নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়ে।’
তাইজুল অবশ্য একটুর জন্য ৫ উইকেট পাননি। বিকেএসপিতে মোহামেডানকে প্রথম ব্রেক থ্রুটা তিনিই এনে দিয়েছিলেন। পরের উইকেটটিও তাঁর। ভিক্টোরিয়ার ইনিংস ধসিয়ে দেওয়ার কাজটা তিনিই শুরু করেছিলেন, শেষও তাঁর হাত ধরে। অর্থাৎ ভিক্টোরিয়ার প্রথম ও শেষ দুটি উইকেট তাইজুলের। ৪০ ওভারে ভিক্টোরিয়া অলআউট ১৫৪ রানে। ৫ উইকেট পাননি, এ নিয়ে অবশ্য তাইজুলের আফসোস নেই, ‘৫ উইকেট পাওয়ার তো সুযোগ ছিল না। ওদের শেষ দুটি উইকেট আমিই নিয়েছি।’

বিকেএসপির অন্য দুই মাঠে মাইশুকুর রহমান ও ফরহাদ হোসেনের দুই ফিফটিতে ব্রাদার্স ৬ উইকেটে করে ২৬৭ রান। খেলাঘরের কাছে সেটি পাহাড়সম হয়ে যায় ব্রাদার্সের স্পিনারদের দাপটে। ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে খেলাঘর করতে পারে ১৯৬। রাজ্জাক-তাইজুলের মতো এখানেও জাদু দেখিয়েছেন এক বাঁহাতি স্পিনার—নিহাদুজ্জামান। ৩৭ রানে ৩ উইকেট নিয়ে ব্রাদার্সের সবচেয়ে সফলতম বোলার তিনিই। গত প্রিমিয়ার লিগে ছিল পেসারদের রাজত্ব, এবার দেখা যাচ্ছে স্পিনারদের দাপট। পঞ্চম রাউন্ড শেষে সেরা পাঁচ বোলারের চারজনই স্পিনার। উইকেটের আচরণও বেশ রহস্যজনক। যে উইকেটে ৩০০ রান উঠছে অনায়াসে, সেখানেই আবার ২০০ করা কঠিন হয়ে যাচ্ছে। উইকেটের দুই আচরণে বৃষ্টি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে বলে মনে করেন রাজ্জাক, ‘বৃষ্টি হলে মাঠ ভেজা থাকে। উইকেটে আর্দ্রতা থাকায় বল মন্থর ও নিচু হচ্ছে। রোদ উঠলে আবার সেটাই পুরোপুরি ব্যাটিং উইকেট হয়ে যাচ্ছে।’

শেখ জামাল-পারটেক্স, ফতুল্লা

পারটেক্স: ৪৬.৩ ওভারে ২০১ (জনি ৬৫, ডোগরা ৩০; রাজ্জাক ৫/২২, তানভীর ২/৪৭)। শেখ জামাল: ৪৫.২ ওভারে ২০২/৭ (মাহাবুবুল ৪২, তানভীর ৩৪*, সোহাগ ৩১; মামুন ৩/৩৭, মাসুম ২/৪৩)।

ফল: শেখ জামাল ৩ উইকেটে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: আবদুর রাজ্জাক।

 ব্রাদার্স-খেলাঘর, বিকেএসপি-৩

ব্রাদার্স: ৫০ ওভারে ২৬৭/৬ (মাইশুকুর ৮৪*, ফরহাদ হোসেন ৬৭, মিজানুর ৪৮, ধীমান ৪২*; তানভীর ৩/৪৯)। খেলাঘর: ৫০ ওভারে ১৯৬/৯ (নাজিমউদ্দিন ৬৮, ডলার ৫৩*; নিহাদুজ্জামান ৩/৩৭, বিসলা ২/২৪)।

ফল:  ব্রাদার্স ৭১ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: মাইশুকুর রহমান।

 মোহামেডান-ভিক্টোরিয়া, বিকেএসপি-৪

ভিক্টোরিয়া: ৪০ ওভারে ১৫৪ (রুবেল ৪২; তাইজুল ৪/৩৭, এনামুল ৩/৩১, শামসুর ২/৩০)। মোহামেডান: ৩০ ওভারে ১৫৮/৩ (শামসুর ৭৪*, অভিষেক ৩৯*; মনির ১/১৯)।

ফল: মোহামেডান ৭ উইকেটে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: শামসুর রহমান।

Leave a Reply

Top