You are here
Home > সারা বাংলা > জেলার খবর > প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়ন,মাদকমুক্ত সমাজ গড়তে অবিরাম ছুটে চলেছেন কাউন্সিলর মোহাম্মদ শরীফুর রহমান

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়ন,মাদকমুক্ত সমাজ গড়তে অবিরাম ছুটে চলেছেন কাউন্সিলর মোহাম্মদ শরীফুর রহমান

স্টাফ রিপোর্টারঃ

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এর নব গঠিত ওয়ার্ড সমূহের মধ্যে ৫১ নং ওয়ার্ড একটি। এ বছরের প্রথমদিকে নবগঠিত এই ওয়ার্ড সমুহে সম্পন্ন হয় নির্বাচন। আলোচিত এই নির্বাচনে দলীয় ও স্বতন্ত্র একাধিক প্রার্থীকে পরাজিত করে জনরায়ে জয়ের মালা পরিধান করেন প্রার্থী হিসেবে নবীন মোহাম্মদদ শরীফুর রহমান। নির্বাচন পূর্ব ঘোষিত ইশতেহার বাস্তবায়নে নেমে পড়েন তিনি বিজয়ী হবার পর দিন থেকেই। তার এলাকার জনগন তার কর্মে প্রীত। জনতার ভালোবাসায় কাউন্সিলর সিক্ত। প্রতিদিনের কাগজের সাথে কথা হয় এই জনতার কাউন্সিলরের তিনি বলেন, ‘কাউন্সিলর হয়েছি নিজের জন্য নয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে, মাদকমুক্ত সমাজ গড়তে। ৫১ নং ওয়ার্ডকে আদর্শ ওয়ার্ড হিসেবে গড়তে। কাউন্সিলর হয়েছি অসহায় মানুষের দ্বারপ্রান্তে গিয়ে তাদের কষ্ট ভাগাভাগি করতে।’ আমার বসে থাকার সময় কোথায়? তরুণ এই কাউন্সিলর বলেন, আমি নির্বাচিত হবার আগে গত এক দশক ধরে দল ক্ষমতায় থাকার পরেও ৫১ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় কোন দৃশ্যমাণ উন্নয়ন হয়নি। স্থানীয় দলের অনেক পদধারী নেতারা ইউপি সদস্য থেকে শুরু করে বিভিন্ন পদ-পদবীতে থাকলেও উদ্যোগের অভাবেই কোন উন্নয়ন হয়নি। তাই নেতৃত্বের পরিবর্তন প্রয়োজন ছিলো। জনগন সেই পরিবর্তনের অংশ হিসেবে আমার উপর আস্থা রেখেছে, আমি তাদের আস্থার প্রতিদান দেবো ইনশাআল্লাহ। ৫১ নং ওয়ার্ড এর একদিকে রয়েছে উচ্চবিত্ত শ্রেণির বাস। অন্যদিকে রয়েছে মধ্যবিত্ত এবং নিম্নমধ্যবিত্ত শ্রেণির বসবাস। এক সময় এই এলাকার মানুষ খাবার পানি, যানজট ও জলাবদ্ধতাসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত থাকলেও এখন অনেকটায় এর বিড়ম্বনা কমেছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। তাদের দাবি এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ শরীফুর রহমানের আন্তরিক প্রচেষ্টা ও ব্যতিক্রমী সেবায় বহুদিনের পুরানো এসব সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পেতে যাচ্ছে এই এলাকার বাসিন্দারা। এইসব এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা য়ায়, তাদের দীর্ঘদিনের এইসব সমস্যা ধীরে ধীরে কমতে শুরু করেছে। এছাড়া কাউন্সিলর মোহাম্মদ শরীফুর রহমান জনগণের যেকোনো প্রয়োজনে ছুটে যাওয়ায় এলাকার উন্নয়নে গতি পেয়েছে বলে জানান তারা। এলাকার তরুণদের কাছে জনপ্রিয় তরুণ এ কাউন্সিলর সাধারণ মেহনতি মানুষের পাশে থাকেন বন্ধুর মতো। স্থানীয় এক বাসিন্দার সঙ্গে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। তিনি বলেন, আমাদের এলাকার জনপ্রতিনিধি তরুণ হওয়ায় আমরা সুফল পাচ্ছি বেশি। তিনি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে এগিয়ে থাকার সুবাধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সক্রিয়। ফেসবুকে কোনো সমস্যার কথা জানালে তড়িৎগতিতে এর ব্যবস্থা নেন বলে জানান এলাকার আরেক বাসিন্দা । ব্যাবসায়ী নেতা থেকে দলীয় রাজনীতিতে আগমন এই মোহাম্মদ শরীফুর রহমানের। দল অন্তপ্রাণ এই নেতা বুকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক চেতনা ধারন করেন। তার নিজ দল আওয়ামীলীগ হলেও দল মত নির্বিশেষে সকল জনতার কাছে তিনি প্রিয়পাত্র।

Leave a Reply

Top