You are here
Home > প্রচ্ছদ > প্রধানমন্ত্রীর ভাষা দেশের জন্য অশনি সংকেত : মির্জা ফখরুল

প্রধানমন্ত্রীর ভাষা দেশের জন্য অশনি সংকেত : মির্জা ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক :

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যে ভাষায় সুপ্রিম কোর্ট ও বিচারপতিদের সমালোচনা করেছেন তা দেশের জন্য অশনি সংকেত।’

আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন মির্জা ফখরুল।

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলে আপিল বিভাগের রায়ের বেশ কিছু পর্যবেক্ষণের ব্যাপারে গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর বক্তব্য তুলে ধরেন। ওই বক্তব্যের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিক্রিয়া জানাতে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বিএনপি।

সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘উচ্চ আদালত, বিচার বিভাগ, সম্মানিত বিচারপতিরা এমনকি প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত বিষেদগার করে বক্তৃতা দেওয়া শুরু করেছেন। বর্তমান ক্ষমতাসীনরা রায়ের কারণে বিচারবিভাগকে টার্গেটে পরিণত করে যে পরিবেশ সৃষ্টি করেছেন তা দেশ জাতি ও রাজনীতির জন্য এক অশনি সংকেত বলে আমরা মনে করি।’

মির্জা ফখরুল আরো বলেন, ‘রাষ্ট্রের তিনটি স্তম্ভ। সে তিনটি স্তম্ভ, তিনটি প্রতিষ্ঠান। একটা আরেকটার বিরুদ্ধে যদি সাংঘর্ষিক হয় তাহলে রাষ্ট্রই তো থাকে না। দুঃখজনকভাবে আজ সরকার প্রধান যিনি তিনি বিচারবিভাগের বিরুদ্ধে বিষেদগার করছেন। বিচার বিভাগকে সরকারের মুখোমুখি এনে দাঁড় করিয়েছেন।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘স্বাধীন হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশে এ ধরনের অভিজ্ঞতা নেই। আমার মনে হয় পৃথিবীর কোনো দেশে এ রকমভাবে একটি দেশের নির্বাহী প্রধান নির্বাহী বিভাগকে বিচার বিভাগের সঙ্গে মুখোমুখি করে দাঁড় করানো এটা আমাদের দেশে তো নেই, অন্য দেশেও নেই।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যরিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্ট তো চায় না প্রশাসনের সঙ্গে কোনো সংঘর্ষে যেতে। আজ যদি চাইতেন তাহলে এদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা হতো। সুয়োমটো রুল ইস্যু করে তাদের আদালতে এনে বিচারের ব্যবস্থা করতে পারতেন। কিন্তু করেন নাই। আমি মনে করি সবদিক থেকে যে সংযমের পরিচয় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট এটা প্রশংসনীয়।’

বিচার বিভাগকে নির্বাহী বিভাগের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে কেউ যেন দেশের ক্ষতি করতে না পারে সেব্যাপারে জনগণকে সচেতন থাকার আহ্বান জানান বিএনপির শীর্ষ নেতারা।

Leave a Reply

Top