You are here
Home > প্রচ্ছদ > দুশ্চিন্তাকে না বলুন !!!!

দুশ্চিন্তাকে না বলুন !!!!

জীবনে জটিলতা থাকেই। তাই মাঝে মাঝে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়াটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। কিন্তু উদ্বেগ আপনার দৈনন্দিন জীবনে বাধা হয়ে দাঁড়ায়, তখন এটি আর অগ্রাহ্য করার কোনো উপায় থাকে না। সমস্যা হলো বেশিরভাগ সময়ই আমরা এটা নিয়ে কথা বলি না। এ বিষয়ে টনিক তুলে ধরলো কিছু গুরুত্বপূর্ণ বার্তা, জেনে নিনঃ

ছোটখাটো কোনো বিষয় নিয়ে ভাবতে ভাবতে যদি আপনার রাতে ঘুম না হয় কিংবা নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে মনে হয় বুকের ওপর ভারী কিছু চেপে বসেছে – তাহলে এটি স্বাভাবিক নয়। অনেকেই ভাবেন, তুচ্ছ ব্যাপার নিয়ে দুশ্চিন্তা সবাই করে! ব্যপারটা মোটেই এমন নয়। এটা সত্যি যে জীবন যত জটিল হচ্ছে, দুশ্চিন্তা করা ততই আমাদের জীবনের অংশ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। তবে দুশ্চিন্তাকে আপনি যত প্রশ্রয় দেবেন, সেটি ততই জেঁকে বসবে। এর ফলে জীবনের অনেক ভাল দিকও আপনার চোখ এড়িয়ে যাবে, বেঁচে থাকার আনন্দ অনুভব করার ক্ষমতা ক্ষয়ে যাবে। দুশ্চিন্তা করতে করতে তৈরি হয় আতঙ্ক, যা হঠাৎ করে আপনার জগতে আঁধার নামিয়ে আনতে পারে। একে বলে ‘প্যানিক অ্যাটাক’। হাত পা ঠাণ্ডা হয়ে যাওয়া, পেটে মোচড় দেয়া, মাথা ঘোরানো, বমি ভাব, নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে যাওয়া, হার্ট অ্যাটাক হচ্ছে এমন অনুভূতি হওয়ার মতো আরো অনেক লক্ষণ আছে আতঙ্কের। ব্যক্তিভেদে যা ভিন্ন হতে পারে।

স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রা আপনাকে এই সমস্যা থেকে পুরোপুরি মুক্তি দিতে পারে। এর জন্য প্রথমেই যা করতে হবে তা হল নিয়মিত শরীরচর্চা। সাঁতার কাটা, ব্যায়াম কিংবা খেলাধুলা করলে আমাদের শরীর ক্লান্ত হয় ফলে ঘুম হয় ভাল। আতঙ্কগ্রস্ত ব্যক্তিদের ঘুম হওয়াটা একান্ত জরুরী। এছাড়াও কিছু নির্দিষ্ট খাবার আছে, যা আমাদের মনে নেতিবাচক ভাবনা সৃষ্টির জন্য দায়ী। এর মধ্যে বেশিরভাগই হলো চর্বিযুক্ত এবং ক্যাফেইন সমৃদ্ধ খাবার, যা আপনাকে সহজেই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত করবে এবং রাতের ঘুম নষ্ট করবে। তাই চাই ব্যালেন্সড ডায়েট। প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় শাকসবজি, ফলমূল, শস্যজাতীয় খাবার, মাছ এবং চর্বিহীন মাংস আপনার দুঃস্বপ্নের দিনগুলোকে বিদায় জানাতে জাদুর মতো কাজ করবে। মনে রাখবেন উদ্বেগ এমন একটি মানসিক সমস্যা যা হেলাফেলা করা উচিৎ নয়। তাই জীবনযাত্রায় পরিবর্তন আনুন, প্রয়োজনে মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞের সাহায্য নিন।

Leave a Reply

Top