চেতনানাশক ঔষধ খাইয়ে ৫ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা, ধামাচাপা দিতে পরিবারকে হুমকি – Live News BD, The Most Read Bangla Newspaper, Brings You Latest Bangla News Online. Get Breaking News From The Most Reliable Bangladesh Newspaper; livenewsbd.co
You are here
Home > সারা বাংলা > জেলার খবর > চেতনানাশক ঔষধ খাইয়ে ৫ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা, ধামাচাপা দিতে পরিবারকে হুমকি

চেতনানাশক ঔষধ খাইয়ে ৫ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা, ধামাচাপা দিতে পরিবারকে হুমকি

ঝালকাঠি প্রতিনিধি :


ঝালকঠিতে চেতনানাশক ঔষধ খাইয়ে পুরো পরিবারকে অচেতন করে ৫ম শ্রেণীর ছাত্রী (১৩) কে ধর্ষনের চেষ্টার ঘটনা ধামাচাপা দিতে ল্যম্পট রাজমনি খান ও তার ছোট ভাই লিমন খান হাসপাতালে ডুকে পরিবারকে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। 


বুধবার রাত্র দেড়টায় সদর উপজেলার প্রত্যন্ত বাড়ৈয়ারা গ্রামে ঘটনার শিকার এ স্কুল ছাত্রী (১৩), তার পিতা শাহজাহান হাওলাদার (৫২), ফাতেমা বেগম (৪০) ও হৃদয় (৮)সহ পুরো পরিবারকে বৃহস্পতিবার সকালে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদিকে শুক্রবার সকালে ল্যম্পট রাজমনির ছোট ভাই লিমন খান হাসপাতালে গিয়ে হুমকি বা কোন মামলা-অভিযোগ করলে কেটে টুকরো টুকরো করে ফেলার হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।


ঘটনার শিকার স্কুল ছাত্রী ও তার পিতা শাহজাহান হাওলাদার (৫২) জানায়, ঘটনার দিন সন্ধ্যায় তাদের ঘরের সবাই পাশের বাড়ীর একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে রাত ৯টার দিকে বাড়ীতে আসে। কিছু সময় পরে পরিবারের সবাই একসাথে রাতের খাবার খাওয়ার পর গরুর দুধ পান করেন। দুধ পান করার পরপরেই সকলের চোখ ঘুমে জড়িয়ে আসলে তিনি নিজে, তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৪০) , হৃদয় (৮) ও মেয়ে (১৩) দ্রুত ঘুমিয়ে পরে। রাত আনুমানিক দেড় টার দিকে আমার মেয়ে (৫ম শ্রেনী) টের পায় কেউ তার বিছানার কাছে এসে শরীরের বিভিন্ন স্পর্শ কাতর স্থানে হাত দিচ্ছে। সে চিৎকার দিতে গেলে উক্ত ল্যম্পট তার মুখ চেপে ধরে ও দ্রুতো ঘর থেকে বেড়িয়ে যাওয়ার সময় সে ঘরের লাইট জ্বালালে কালো গেজ্ঞি ও শর্টপ্যান্ট পরিহিত ল্যম্পট রাজমনি খানকে দেখতে পায়। 

   এ বিষয় মেয়েটির মা ফাতেমা বেগম জানায়, বুধবার সন্ধ্যার পরে তাদের ঘর ফাকা পেয়ে দুস্কৃতিকারীরা রাতে ঘরে প্রবেশ করে রান্নার ঘরে থাকা গরুর দুধে বা খাবারে চেতনানাশক কিছু মিশিয়ে রেখেছিল। আর সেই ঔষদ মিশানো খাবার খেয়ে আমরা ঘুমিয়ে পড়ি। হঠাৎ গভীর রাতে মেয়ের ডাক-চিৎকার শুনে এগিয়ে আসলে উক্ত ল্যম্পট দ্রুত দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ায় ধরতে পারিনি। পরের দিন সকালে তাদের বড় মেয়ে মনিকা বেগম খবর পেয়ে ঝালকাঠির বাসা থেকে বাপের বাড়ি গিয়ে তার মা-বাবা, বোন-ভাইকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে ভর্তি করে ও ঘটনাটি থানা পুলিশকে জানায়।   

  স্থানীয় বেশ কয়েকজন প্রতিবেশী জানায়, ল্যম্পট রাজমনি খানের পিতা মোসলেম খান ও তার ভাই লিমন খানসহ তাদের সহযোগিরা এলাকায় প্রভাবশালী। রাজমনি খান ও লিমন খানসহ তার দলবলের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে হত্যা চেষ্ট, দখলবাজী ও সন্ত্রাসী সহ বিভিন্ন অভিযোগে ৩টি মামলা বিচারাধীনসহ বহু অভিযোগ রয়েছে।

Leave a Reply

Top