You are here
Home > সারা বাংলা > জেলার খবর > চিরিরবন্দরে বন্যায় মসজিদের দেয়াল ফেঁটে যাওয়ায় মুসল্লিদের মধ্যে আতংক বিরাজ

চিরিরবন্দরে বন্যায় মসজিদের দেয়াল ফেঁটে যাওয়ায় মুসল্লিদের মধ্যে আতংক বিরাজ


মোঃ নুর আলম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে বন্যার পানিতে মসজিদের দেয়াল দেবে ফেঁটে যাওয়ায় মুসল্লিদের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে।
সরজমিনে জানা যায়, উপজেলার আউলিয়াপুকুর ইউনিয়নের পূর্ব ইন্দ্রপাড়া বাইতুন নুর জামে মসজিদের দেয়াল বন্যার কারনে দেবে গিয়ে ভয়াবহ ভাবে ফাটলের সৃষ্টি হয়। এতে করে আনুমানিক শতাধিক বাড়ীর লোকজনের ওই মসজিদে এক সঙ্গে নামাজ আদায় বন্ধ হয়ে যায়। মসজিদের ঈমাম মৌলানা মোঃ আশরাফ আলী জানান, গত ১৮ আগষ্ঠ শুক্রবার প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা থাকায় জুমআ’র নামাজ ওই মসজিদে না পড়িয়ে পার্শ্বের খুলিয়ানে আদায় করা হয়। মুয়াজ্জিন মোঃ নছর উদ্দিন জানান, গত ১৪ আগষ্ঠ দুপুরে যোহরের আজান দিতে গিয়ে দেয়াল ফাটার শব্দ শুনে ভীত হয়ে পড়ি। এরপর সর্দারসহ অনেককে জানাই। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হাসিবুল হাসান হাশিম বাবু জানান, মসজিদ ফেটে যাওয়ার সংবাদ পাওয়া মাত্র ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যকে পাঠিয়ে ওই ঝুঁকিপুর্ন মসজিদে নামাজ আদায় করতে নিষেধ করি। ওই মসজিদের ঘরটি সকলের সঙ্গে আলোচনা করে ভেঙ্গে নতুন করে আরও বড় আকারের মসজিদ নির্মান করতে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ ও সহযোগিতা করা হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ গোলাম রব্বানী জানান, ক্ষতিগ্রস্থ মসজিদটি নামাজ আদায়ের জন্য আশংকাজনক। এক সঙ্গে অনেক লোকজন নামাজ আদায় করলে দেয়াল ভেঙ্গে প্রাণহানি হতে পারে। এজন্য সকলকে সতর্ক থাকার পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে। বরাদ্দ পেলে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা হবে।
ওই মসজিদের সর্দার মোঃ আবুল কালাম ও মুসল্লি আলহাজ্ব শহিদুল ইসলাম জানান, আনুমানিক ৫০ বছর পূর্বে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়। শতাধিক বাড়ীর পুরুষ ও মহিলারা এই মসজিদে প্রতিদিন নামাজ করে থাকে। মহিলাদের পর্দার বিশেষ ব্যবস্থা করা আছে। শুক্রবার জুমআ’র নামাজের দিনে মুসল্লিদের সংখ্যা বেশি হয়। বন্যার কারনে দেবে যাওয়ায় দেয়াল ফেঁটে গিয়ে মসজিদটি বেশ ঝুঁকিপুর্ন হয়ে পড়েছে। জরুরী ভিত্তিতে মসজিদটি নতুন করে নির্মান করা প্রয়োজন। ওই মসজিদটি পুনঃনির্মাণ করতে প্রশাসনসহ বিত্তবানদের প্রতি আকুল আহবান জানিয়েছেন মুসল্লিবৃন্দ।

Leave a Reply

Top