You are here
Home > সারা বাংলা > জেলার খবর > চিরিরবন্দরে গরু চোরের উপদ্রপ বেড়েই চলছে ।

চিরিরবন্দরে গরু চোরের উপদ্রপ বেড়েই চলছে ।

এস.এম নুর আলম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ

চুরির উপদ্রব। এ যেন প্রতিনিয়ত পাল্লা দিয়ে বাড়ছে গরু চুরির এই উপদ্রব।
সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতকাল ২৭ ডিসেম্বর বুধবার গভীর রাত্রে ৬ নং অমরপুর ইউনিয়নের বাসুদেবপুর (পানুয়াপাড়ার) মৃত: তিয়লক্ষ চন্দ্র দাসের বাড়ীর প্রাচীর টপকিয়ে মেইন দরজা কেটে বিভিন্ন জাতের ৬টি গরু চুরি করে নিয়ে যায়, যার বাজার মূল্য ৩ লক্ষ টাকা। একই দিনে সাতনালা ইউনিয়নের তারকশাহার হাট (তালতলা) গ্রামের বাছের মন্ডল পাড়ার মৃত: আব্দুল লতিফের স্ত্রী তহমিনা খাতুনের বাড়ীর দরজা তালা ভেঙে বিভিন্ন জাতের ৩টি গরু চুরি করে নিয়ে যায়, যার বাজার মূল্যে ২ লক্ষ টাকা।
চিরিরবন্দর উপজেলা বিভিন্ন ইউনিয়নে প্রায় শতাধিক গরু চুরির ঘটনা ঘটেছে। গ্রামের হতদরিদ্র খেটে খাওয়া মানুষের প্রায় বাড়িতেই দু-একটি গরু থাকে। অনেকে শখের বসে, অনেকে বাড়তি কিছু আয় রোজগারের কথা ভেবে আবার অনেকেই বাণিজ্যকভাবে গরু পালন করে থাকে।
গত ২২ ডিসেম্বর ৬নং অমরপুর ইউনিয়নের মথুরাপুর কারেঙ্গাতলী মৃত: আব্দুল মজিদের ছেলে মো: জাহেনুর আলমের বিভিন্ন জাতের ২ টি গরু চুরি হয়, যার বাজার মূল্যে এক লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।
মথুরাপুর কারেঙ্গাতলী দোকানদার মিলন বলেন, চিরিরবন্দরে এতই বেশি চোর হয়ে গেছে একটা দিন ঠিকমত ঘুমাতে পারিনা। চিরিরবন্দর চোরের উপদ্রব অধিকাংশ বেড়েই যাচ্ছে। বন্যায় মানুষ কোমড় খাড়া করতে পারেনি, তার উপরে চোরের উপদ্রব।
এলাকাবাসী জানান, রাতের আধারে এই সমস্ত চুরি হয়ে থাকে। চোর এলাকার না হলেও চুরি করতে এলাকার কিছু অসাধু লোক ওই সমস্ত চোরদের নানা ধরনের তথ্য দিয়ে সাহায্য করে থাকে। যে বাড়ীতে চুরি হবে ওই বাড়ির সকল খবরাখবর বিশেষ করে পুরুষ মানুষ কে কখন কোথায় থাকে। কি করে না করে এই সকল তথ্য নিয়ে গরু চোরের ব্যাপক প্রস্তুতির মাধ্যমে ট্রাক বা পিকআপ গাড়ি নিয়েই গরু চুরি করতে নামে।

Leave a Reply

Top