You are here
Home > প্রচ্ছদ > গাড়িবহর নিয়ে ঈশ্বরদীতে ফিরলেন ভূমিমন্ত্রীর ছেলে

গাড়িবহর নিয়ে ঈশ্বরদীতে ফিরলেন ভূমিমন্ত্রীর ছেলে

স্টাফ রিপোর্টার :

জামিনে মুক্তি পেয়েছেন ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমানের ছেলে ও পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি শিরহান শরীফ তমাল। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতের বিচারক রেজাউল করিম তাঁর জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। বিকেলে শিরহানের অনুসারীরা দুই শতাধিক মোটরসাইকেল এবং প্রায় অর্ধশত মাইক্রোবাসের বহর নিয়ে তাঁকে জেলা কারাগার থেকে ঈশ্বরদীতে নিয়ে যান।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও ঈশ্বরদী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শাহীন মিয়া বলেন, দুপুরে আসামি শিরহান শরীফের পক্ষে তাঁর আইনজীবীরা দুটি মামলায় জামিনের আবেদন করেন। এ সময় তিনি আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন। বিচারক শুনানি শেষে দুটি মামলাতেই জামিন মঞ্জুর করেন।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, জামিন আবেদন মঞ্জুর হওয়ার পর শিরহানকে জেলা কারাগারে নেওয়া হয়। বিকেলে ঈশ্বরদী থেকে তাঁর অনুসারীরা মোটরসাইকেল ও মাইক্রোবাসের বিশাল বহর নিয়ে পাবনা শহরে উপস্থিত হন। এ সময় বিপুলসংখ্যক মোটরসাইকেল দেখে শহরজুড়ে আতঙ্ক তৈরি হয়। সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে শিরহানকে কারাগার থেকে বের করা হয়। তাঁকে নিয়ে মোটরসাইকেল ও মাইক্রোবাসের বহরটি পাবনা-পাকশী আঞ্চলিক সড়ক দিয়ে দ্রুত ঈশ্বরদীর দিকে চলে যায়। সন্ধ্যায় গাড়িবহরটি ঈশ্বরদীতে পৌঁছায়।
মামলার বিবরণ ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ১৮ মে ঈশ্বরদী শহরে ফুড জংশন ও লক্ষ্মী মিষ্টান্ন ভান্ডার নামে দুটি দোকান এবং কলেজ রোডে মুক্তিযোদ্ধা আজমল হক বিশ্বাস ও শহীদ আমিনপাড়ায় আতিয়ার রহমান বিশ্বাসের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। আতিয়ার রহমান বিশ্বাস বাদী হয়ে ভূমিমন্ত্রীর ছেলে শিরহানসহ ৩৬ জনের বিরুদ্ধে ঈশ্বরদী থানায় মামলা করেন। পুলিশ ওই রাতে ভূমিমন্ত্রীর বাড়ি থেকে শিরহান ও অন্য এলাকা থেকে ১১ জনকে গ্রেপ্তার করে। এর দুই দিন পর ২০ মে থানায় মুক্তিযোদ্ধা আজমল হক বিশ্বাস ও ফুড জংশনের মালিক শফিকুল আলম বাদী হয়ে আরও দুটি মামলা করেন। আজমল হক বিশ্বাসের মামলায় আসামি করা হয় শিরহানসহ ৩৬ জনকে। শরিফুল আলমের মামলায় উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রাজীব সরকারসহ ৩৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। তিনটি মামলার দুটিতে প্রধান আসামি করা হয় শিরহানকে।

Leave a Reply

Top