You are here
Home > সারা বাংলা > গাজীপুর সিটিতে বিদেশীরা বিনিয়োগ করতে আগ্রহী — মেয়র জাহাঙ্গীর আলম

গাজীপুর সিটিতে বিদেশীরা বিনিয়োগ করতে আগ্রহী — মেয়র জাহাঙ্গীর আলম

ইমন খানঃ

বর্তমানে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের নানামূখী উন্নয়নে বিদেশী দাতা সংস্থাদের বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। তারা সিটি কর্পোরেশনের উন্নয়ন দেখে মূগ্ধ,তারা আরো ভিজিট করবেন। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে বিশাল একটি টিম নিয়ে পরিদর্শনে আসবেন। আপনাদের সহযোগিতায় সিটি কর্পোরেশন শহর হিসেবে বাস্তবে রুপ নিবে। গাজীপুর মহানগরের বাসন থানাধীন নাওজোর এলাকায় বুধবার দুপুরে ১০ শয্যা বিশিষ্ট প্রফেসর সিরাজুল হক জেনারেল হাসপাতালের শুভ উদ্বোধন উপলক্ষে মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র ওইসব কথা বলেন।

ভাওয়াল বদরে আলম কলেজের সাবেক জিএস এসএম আক্রাম হোসেনের সভাপতিত্বে এবং গাজীপুর জেলা আওয়ামী যুবলীগ’র আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মোঃ ফিরোজ আহাম্মেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যােেন্যর মধ্যে বক্তব্য রাখেন বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার মিয়া, অধ্যাপক এমএ বারী, গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক মো. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী এবং ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক ১৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. রফিকুল ইসলাম, ১৪ নং ওয়ার্ড কাউলন্সিলর সোয়েব আল আসাদ মনির,বাসন থানার ওসি ফারুক হোসেন,জেলা যুবলীগের আহবায়ক এস এম আলতাফ হোসেন,গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য রিয়াজ মাহমুদ আয়নাল,গাজীপুর আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ জাকির উদ্দিন আহমেদ,
১৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হামিদ মুন্সী,১৩ নং সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক নজরুল ইসলাম,বাসন থানা আওয়ামী লীগ নেতা জহিরুল ইসলাম গামা, বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদ ও বঙ্গবন্ধু স্মৃতি পাঠাগার গাজীপুর মহানগর শাখার সভাপতি মোঃ আব্দুস সোবাহান, মহানগর মটরচালক লীগের সাধারণ সম্পাদক রাসেল গাজী,শ্রমিক লীগ নেতা শামসুল সরকার,শাজাহান, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মোঃ আনোয়ার হোসেন,শেখ রুবেল রানা,আব্দুর রহমান,পাপ্পু সরকার।প্রমুখ।

মেয়র আরো বলেন, মহানগরের উত্তরের অংশে কাউলতিয়া এলাকায় একটি অর্থনৈতিক জোন করা হবে। সেখানে ৪শ কারখানা স্থাপন হবে। এর চারপাশে তৈরি হবে ৬লাখ শ্রমিক/মানুষের বসবাসের জন্য আবাসন ব্যবস্থা। নগরীর শিশুদের জন্য জাপান ও তুরস্কের বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে গাজীপুর মহানগরের বিভিন্ন স্থানে প্রতিটি ১৫ বিঘার জমির উপর ১০টি স্কুল তৈরি করা হবে। যার প্রতিটি স্কুলে ১০হাজার শিক্ষার্থীর লেখাপড়ার সুযোগ পায়। এছাড়া প্রথম পর্যায়ে মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে ৫ বিঘা থেকে ১৫বিঘা জমির উপর কবরস্থান নির্মাণ করা হবে। অতি সম্প্রতি বিভিন্ন ওয়ার্ডের মুরুব্বীর নিয়ে বৈঠক ডেকে পরামর্শ নেয়া হবে কোথায় কি প্রয়োজন রয়েছে। তারপর তাদের সহযোগিতা নিয়ে ওইসব কাজের বাস্তবায়ন করা হবে। বাসায় যেতে যাতে কারো যেন সমস্যা নায় হয়, তারজন্য বাড়ি বাড়ি রাস্তা পৌঁছে দেয়া হবে।
গাজীপুর মানুষ যাতে নিরাপদে থাকতে পারেন, ঘরের দরজা খুলে ঘুমোতে পারেন তার জন্য সকল ব্যবস্থা হাতে নিচ্ছি। সিটির প্রতিটি রাস্তার মুখে ফটক নির্মাণ, সিসি ক্যামেরা ও সিকিউরিটি বসিয়ে এলাকার চুরি, ডাকাতি, ছিনতাইয়ের মতো অপরাধ দমন করা হবে। সম্প্রতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গাজীপুর সিটির বিভিন্ন রাস্তা, ড্রেনসহ নানা অবকাঠামো নির্মাণের জন্য এ করপোরেশনকে ১০হাজার কোটি টাকা বরাদ্ধ দিয়েছেন। যা দিয়ে সিটির নানা উন্নয়ন কর্ম চলছে।

Top