You are here
Home > দূরনীতি ও অপরাধ > গাজীপুরে জেএমবির দুই ‘সদস্য’ গ্রেপ্তার

গাজীপুরে জেএমবির দুই ‘সদস্য’ গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক :

গাজীপুর চৌরাস্তা এবং কাপাসিয়া উপজেলা থেকে নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবির দুই সদস্যকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

আজ শুক্রবার র‍্যাব ২-এর পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে জেএমবির সদস্য মো. মোতাসিম বিল্লাহ (২১) ও মো. মোরসালিন শেখকে (২৫) গ্রেপ্তার করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কয়েকটি মামলার তদন্তকালে কয়েকজনকে আটক করে র‍্যাব। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে কয়েকজন জঙ্গি সদস্য সম্পর্কে তথ্য-উপাত্ত পাওয়া যায়। পরে র‍্যাবের গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়। এরই ধারাবাহিকতায় গোয়েন্দা ও প্রযুক্তিগত তথ্যের মাধ্যমে র‍্যাব ২-এর একটি দল গত ৩১ মে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকা থেকে মো. মফিজুল ইসলাম ওরফে তুষার ওরফে তাওহীদ (২৯), মো. রকিবুল ইসলাম ওরফে রকিবুল মোল্লা (২৩) ও মো. ইলিয়াছ আহমেদকে (১৯) বিস্ফোরক দ্রব্য এবং জঙ্গিবাদী বইসহ গ্রেপ্তার করে। এদের কাছ থেকে প্রাথমিক তথ্য যাচাই-বাছাই করে তাদের দলের অন্যদের গ্রেপ্তারের জন্য আসামিদের মহানগর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। এরপর আদালত আসামিদের প্রত্যেকের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ড চলাকালীন আসামিরা জানান, জেএমবির সক্রিয় সদস্য তাঁরা এবং তাঁদের অন্যতম নেতা ইয়াছিন প্রধান সংগঠক। ইয়াছিন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হলে তাঁদের দলনেতা নিযুক্ত হন সোহেব ওরফে সোয়াইব।

আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‍্যাব আরো জানায়, গত ৩০ মে তাঁদের দলনেতা সোহেবের নির্দেশে তাঁরা তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকায় কোনো এক পীরের মাজারে নাশকতা চালানোর পরিকল্পনা করেন। এ জন্য তাঁরা ৮ থেকে ১০ জন একত্র হন। কিন্তু সোহেব ঘটনাস্থলে উপস্থিত হওয়ার আগেই র‍্যাব তাঁকে গ্রেপ্তার করে। সে সময়ে ঘটনাস্থল থেকে ৮ থেকে ১০ জন ব্যক্তি একটু দূরে থাকায় পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আসামিরা জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে জানান, তাদের কিছু সদস্য ঢাকা, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পোশাকসহ অন্যান্য কারখানায় কাজ করছেন। এই জঙ্গিদের গাজীপুর, সাভার ও নারায়ণগঞ্জে বড় ধরনের নাশকতার পরিকল্পনায় ছিল। বিভিন্ন সরকারি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা এবং তাদের দৃষ্টিতে ইসলামের আদর্শের পরিপন্থী কিছু পীর ও ফকিরের মাজার বা আস্তানায় হামলারও পরিকল্পনা ছিল তাদের।

Leave a Reply

Top