একুশে অাগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ – Live News BD, The Most Read Bangla Newspaper, Brings You Latest Bangla News Online. Get Breaking News From The Most Reliable Bangladesh Newspaper; livenewsbd.co
You are here
Home > দূরনীতি ও অপরাধ > একুশে অাগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ

একুশে অাগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ

আদালত প্রতিবেদকঃ একুশে অগস্ট গ্রেনেড হামলার দু্ই মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। মামলার চূড়ান্ত তদন্ত কর্মকর্তা ও সিআইডির জ্যেষ্ঠ বিশেষ পুলিশ সুপার আব্দুল কাহার আকন্দের জেরা শেষের মধ্যে দিয়ে মঙ্গলবার মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়।

এছাড়া মঙ্গলবার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আসামিদের আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য ১২, ১৩ এবং ১৪ জুন দিন ধার্য করে দিয়েছেন ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন।

বহুল আলোচিত এ মামলায় ৫১১ সাক্ষীর মধ্যে এ পর্যন্ত কাহার আকন্দসহ ২২৫ জনের সাক্ষ্য নিয়ে সাক্ষ্যগ্রহণ প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছেন এ ট্রাইব্যুনালে রাষ্ট্রপক্ষের বিশেষ কৌঁসুলি আবু আব্দুল্লাহ ভূইয়া। মঙ্গলবারও কাহার আকন্দকে আসামিপক্ষ থেকে জেরা করা হয় বলে জানান তিনি।

২০০৪ সালের ২১ অগাস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলায় দলটির তৎকালীন মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত এবং কয়েকশ নেতৃবৃন্দ আহত হন।

সন্ত্রাসবিরোধী ওই সমাবেশে প্রধান অতিথি শেখ হাসিনার বক্তব্য শেষ হওয়ামাত্র গ্রেনেড হামলা ও গুলিবর্ষণ শুরু হয়। এতে অল্পের জন্য শেখ হাসিনা প্রাণে বেঁচে গেলেও গ্রেনেডের প্রচণ্ড শব্দে তার শ্রবণশক্তি নষ্ট হয়।

এ ঘটনায় পরদিন মতিঝিল থানার তৎকালীন এসআই ফারুক আহমেদ বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। মামলাটি প্রথমে তদন্ত করে থানা পুলিশ।
পুলিশের তদন্তের পর ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ তদন্তের দায়িত্ব পায়। পরে মামলাটি যায় সিআইডিতে। ২০০৮ সালের ১১ জুন পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডির জ্যেষ্ঠ এএসপি ফজলুল কবির মুফতি হান্নানসহ ২২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন।

২০০৯ সালের ৩ অগাস্ট রাষ্ট্রপক্ষ মামলাটির অধিকতর তদন্তের আবেদন করলে ট্রাইব্যুনাল তা মঞ্জুর করে। মামলাটি তদন্তের ভার পান সিআইডির পুলিশ সুপার আব্দুল কাহার আকন্দ। তিনি ২০১১ সালের ৩ জুলাই তারেক রহমানসহ ৩০ জনের নাম যুক্ত করে মোট ৫২ জনের নামে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি অভিযোগপত্র দেন।

মামলার আসামিদের মধ্যে যুদ্ধাপরাধে জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ায় এ মামলা থেকে তার নাম বাদ যায়।

মামলার আরেক আসামি মুফতি হান্নানের ফাঁসি হয়েছে ২০০৪ সালে সিলেটে তৎকালীন ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর উপর গ্রেনেড হামলার মামলায়।

 

One thought on “একুশে অাগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ

Leave a Reply

Top