You are here
Home > ইসলামিক জীবন > আশুলিয়ার মাদ্রিসার নামে ব্যবসা।

আশুলিয়ার মাদ্রিসার নামে ব্যবসা।


মোঃ শাকিল আহম্মেদ, আশুলিয়া :

আশুলিয়ার ঘোষবাগ বাস স্ট্যান্ডে আশুলিয়া মডেল মাদ্রাসার নামে একটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠান করে ব্যবসা করছেন এক জন অযোগ্য শিক্ষক নিজামুল হক (৪০) । সূত্র জানা নিজামুল হক ঘোষবাগ এলাকায় ১৯৯৯ সালে তাঁর চাচাতো ভাই কে এম আব্দুস সোবাহান এর প্রতিষ্ঠিত তালিমুল উম্মাহ্ দাখিল মাদ্রাসায় চাকুরী নেন নিজামুল হক । চাচাতো ভাই হওয়ায় তার কাগজ দেখার প্রয়োজন মনে করেন তিনি । চাকুরী দেন নিজের লোক হওয়ার দীর্ঘ দিন এসিস্ট্যান্ট সুপার হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন তিনি ২০১৭ সাল পর্যন্ত, পরে শিক্ষক নীতিমালা সরকারি অনুযায়ী তাঁর শিাগত যোগ্যতার সকল আসল কাগজপত্র দিতে না পেরে মাদ্রাসায় আসা বন্ধ করে দিয়ে কিছু দিন পর নিজামুল হক এই মাদ্রাসার পাশেই আশুলিয়া মডেল মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত করে । নিজামুল হক প্রায় ৬০ জন শিার্থী নিয়ে যায়,এর পর হতে এলাকার কিছু লোকজনকে সঙ্গে নিয়ে তালিমুল উম্মাহ্ মাদ্রাসাটি করার জন্য পাঁয়তারা চলছে,এখন পর্যন্ত নিজামুল হক ওই মাদ্রাসাটির হিসাব দেননি অভিযোগ করে তালিমুল উম্মাহ্ মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাতা সুপার লাইভ নিউজ বিডিকে বলেন, আমি অনেক কষ্ট করে এই মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠিত করেছি, প্রায় একুশ বছর যাবৎ এই প্রতিষ্ঠানটি চলছ্‌, বর্তমানে নিজামুল হক আমার মাদ্রাসার ছাত্র ছাত্রীদের বাসায় বাসায় গিয়ে ওই প্রতিষ্ঠানের নামের বদনাম করে ছাত্র ছাত্রীদের তার মাদ্রাসা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ভর্তি করে নিচ্ছেন, অথচ তিনি নিজেই অযোগ্য শিক্ষক তা ছাড়া সরকারি নজরদারি মাদ্রাসার পাশেই আরেকটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন, তা ছাড়া নিজামুল হক ওই মাদ্রাসার চালাচ্ছেন এলাকার কিছু অসাধু লোকের প্রবঞ্চনা । যারা আমার ওই প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ করে জমি দখল করার পায়তারা করছে, আমি আইনগত সহযোগিতার জন্য আশুলিয়া থানায় একাধিক সাধারণ ডায়েরি করেছি বর্তমানে আমার মাদ্রাসাটি অবস্থান খুব খারাপ স্থানীয় ও প্রশাসন বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য জোর দাবি জানিয়েছেন উক্ত প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা সুপার কে এম আব্দুস সোবাহান।

Leave a Reply

Top