You are here
Home > প্রচ্ছদ > অটোরিকশায় বেশি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ

অটোরিকশায় বেশি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টারঃ জামালপুর ও চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণে সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালকেরা যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছেন। ঈদ উপলক্ষে যাত্রীদের কাছ থেকে ৪০-১০০ টাকা করে বেশি আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কয়েকজন যাত্রী অভিযোগ করেন, তাঁরা পরিবারের সঙ্গে ঈদ করতে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন শহর থেকে গ্রামের বাড়িতে এসেছিলেন। ঈদ শেষে অনেকে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছেন। কিন্তু এখন সড়কে যানবাহন কম থাকায় জামালপুর জেলার সব অভ্যন্তরীণ সড়কে ভাড়া ৫০ থেকে ১০০ টাকা করে ভাড়া বেশি নিচ্ছেন অটোরিকশা চালকেরা। তিন দিন ধরে চালকেরা অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে তা বন্ধে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সরেজমিনে দেখা যায়, জেলার অভ্যন্তরীণ জামালপুর-ইসলামপুর সড়কপথে ভাড়া ৫০ টাকার স্থলে ১০০ টাকা, জামালপুর-দেওয়ানগঞ্জ ৮০ টাকার স্থলে ১৫০-২০০ টাকা, জামালপুর-মাদারগঞ্জে ৮০ টাকার স্থলে ১৫০-২০০ টাকা, জামালপুর-মেলান্দহে ৩০ টাকার স্থলে ৬০-৭০ টাকা, জামালপুর-বকশীগঞ্জে ৮০ টাকার স্থলে ১৫০-২০০ টাকা ও জামালপুর-ময়মনসিংহে ১৩০ টাকার স্থলে ২৫০-৩০০ টাকা করে নেয়া হচ্ছে।

ইসলামপুর উপজেলা পৌর শহরের বাসিন্দা মুক্তার আলী বলেন, তিনি ঈদের আগের দিন গ্রামের বাড়িতে আসেন। ছুটি শেষ হওয়ায় আজ (গতকাল বৃহস্পতিবার) কর্মস্থলে ফিরে যাচ্ছেন। ইসলামপুর থেকে ৫০ টাকার ভাড়া ১০০ টাকা দিয়ে জামালপুর পৌর শহর পর্যন্ত এসেছেন। এখন জামালপুর থেকে ময়মনসিংহে যেতে অটোরিকশা চালকেরা যাত্রীপ্রতি ৩০০ টাকা করে ভাড়া চাচ্ছেন।

জামালপুর জেলা সিএনজি অটোরিকশা অটো টেম্পো শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য আনোয়ার হোসেন বলেন,‘ অটোরিকশার চালকদের মালিককে প্রতিদিন ৫০০ টাকা করে দিতে হয়। সিএনজি ফিলিং স্টেশনে সকালে ঢুকলে বিকেলে গ্যাস নিয়ে বের হতে হয়। ফলে তাঁর সারা দিন চলে যায়। বাকি সময়ের মধ্যে ওই চালক হয়তো এক থেকে দুটি ট্রিপ মারতে পারেন। তাই ভাড়া একটু বেশি নিতে হচ্ছে।’

ট্রাফিক পরিদর্শক মোঃ আলী আহছানুজ্জামান বলেন, ‘অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়ে কোনো অভিযোগ আমরা পাইনি।’

মতলব দক্ষিণ উপজেলায় কয়েকটি সড়কে ঈদের বকশিশের কথা বলে অটোরিকশা চালকেরা যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মতলব দক্ষিণ উপজেলা অটোরিকশা চালক ও মালিক সমিতি সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার অভ্যন্তরীণ চারটি সড়কে ৮৫০টি সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচল করে। একাধিক যাত্রী ও স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করেন, গত এক সপ্তাহ অটোরিকশার চালকেরা মতলব-চাঁদপুর ও মতলব-নায়েরগাঁও ১৮ কিলোমিটার সড়কে ৫০ টাকার স্থলে ৯০-১০০ এবং মতলব-বাবুরহাট ও মতলব-নারায়ণপুর সড়কে ৪০ টাকার স্থলে ৭০-৮০ টাকা ভাড়া আদায় করছেন।

মতলব-নারায়ণপুর সড়কে চলাচলকারী ব্যবসায়ী মোঃ মোস্তফা মিয়া অভিযোগ করেন, ঈদের তিন-চার দিন আগে থেকেই নানা অজুহাতে অটোচালকেরা যাত্রীদের কাছ থেকে দেড়-দুই গুণ ভাড়া আদায় করছেন।

এ বিষয়ে মতলব দক্ষিণ অটোরিকশা চালক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুল রহিম বলেন, ঈদের সময় বিভিন্ন মোড়ে ও স্টেশনে পরিবহননেতা ও পুলিশকে বখরা (চাঁদা) দিতে হয় চালকদের। সেটা পুষিয়ে নিতে ঈদের আগে ও পরে চালকেরা যাত্রীদের কাছ থেকে কিছুটা বেশি ভাড়া নেন।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মোঃ শহিদুল ইসলাম বলেন, কয়েকটি রুটে অটোরিকশায় বেশি ভাড়া নেয়ার অভিযোগ পেয়েছেন। তদন্ত করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি আরও বলেন, অটোরিকশায় পুলিশের চাঁদাবাজির বিষয়টি তিনি জানেন না।

Leave a Reply

Top